কিওয়ার্ড রিসার্চ কি ? কিভাবে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয় ?

keyword research

বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলে কিওয়ার্ড রিসার্চ কি আর কিভাবে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয় সে বিষয়ে কথা বলব যদি আপনি ব্লগিং এখন শুরু করে থাকেন তাহলে আপনি কিওয়ার্ড রিসার্চ কিভাবে করবেন এটি জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

অনেক ব্লগার আছেন যাদের পোস্ট লিখতে অনেক বেশি কষ্ট করতে হয়। তারা যে সমস্ত পোস্ট লিখেন তাদের জন্য সবথেকে ভালো কিওয়ার্ড কোনটি ? এটি খুঁজতে তাদের অনেক বেশি কষ্ট করতে হয় আর আপনার পোষ্টের জন্য ভালো কিওয়ার্ড খোজা অত্যন্ত জরুরি আর ভালো কিওয়ার্ড খোঁজার জন্য আপনাকে কিওয়ার্ড রিসার্চ এটি অবশ্যই বুঝতে হবে। আর তারপর আপনাকে কিওয়ার্ড রিসার্চ কিভাবে করবেন এই বিষয়ে বুঝতে হবে। তাহলে চলুন বিস্তারিত হবে জেনে নিই।

কিওয়ার্ড রিসার্চ কি?

কিওয়ার্ড রিসার্চ এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে আপনি গুগলে কোন কিওয়ার্ড সবথেকে বেশি সার্চ করা হচ্ছে সেই সম্বন্ধে জানতে পারবেন আর সাথে সেই কিওয়ার্ডের-

  • Search volume
  • Competition
  • CPC

ইত্যাদি এই বিষয়ে জানতে পারবেন। আপনি যদি কনটেন্ট লেখার আগে কিওয়ার্ড রিসার্চ করেন। তাহলে আপনি আপনার পোস্টকে আপনার টার্গেটেড কিওয়ার্ড এ রেঙ্ক করাতে পারবেন। কিওয়ার্ড কত প্রকারের সেটি জানার আগে কিওয়ার্ড কি সেটা আপনাদের জানতে হবে।

কিওয়ার্ড এমন একটি ওয়ার্ড বা বাক্য যেটি দিয়ে আমরা সার্চ করি এবং কোন টপিক এর সম্বন্ধে জানার জানার জন্য চেষ্ঠা করি। আমরা যেটি গুগলে সার্চ করি সে গুলোকে কিওয়ার্ড বলা হয়। কিওয়ার্ড কি ? তা আমরা একটি উদাহরণের সাথে বুঝবো-

উদাহরণ: যেমন আমরা অনলাইন থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করবো এই সম্বন্ধে জানতে চাই। তাহলে আমরা গুগলের সার্চ বারে Make Money Online লিখে সার্চ করি। Make Money Online এটি একটি কিওয়ার্ড। মোট কথায় মানুষ যা লিখে সার্চ করে তাকেই কিওয়ার্ড বলে।

কিওয়ার্ড রিসার্চ এত গুরুত্বপূর্ণ কেন ? 

বিগত দশ বছর ধরে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের মধ্যে কীভাবে পরিবর্তন এসেছে সেটা আমরা সবাই জানি। আর এই ডিজিটাল মার্কেটে এখন ঠিক কতটা কম্পিটিশন সে কথা আর বলাই বাহুল্য। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের ঝড়ে টিকে থাকার জন্য আপনাকে অবশ্যই কিওয়ার্ড রিসার্চটি অনেক সঠিক ভাবে করতে হবে। সঠিক ভাবে কিওয়ার্ড রিসার্চ করে সেই তথ্যকে কাজে লাগালেই কেবল এখন গুগুল সার্চে র‍্যাংক পাওয়া যায়। 

এছাড়া এখনকার নিত্য নতুন গুগল সার্চ এলগরিদমের আপডেটের কারণে এটাও সবাই জানে যে মানুষ যা লিখে সার্চ করছে, শুধুমাত্র সেটার সাথে মানিয়ে কন্টেন্ট তৈরি করলেই এখন আর র‍্যাংক পাওয়া যায় না। বরং বর্তমানে সেই কন্টেন্টে এ আপনি কিওয়ার্ডটি কি জন্য রেখেছেন এবং কীভাবে ব্যবহার করছেন সেটাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। 

এছাড়া অনেক বেশি আছে যে কিওয়ার্ড গুলো দিয়ে মানুষ সার্চ করছে। তার পাশাপাশি সেই একই টপিকের উপর কম সার্চ করছে এমন কিওয়ার্ডও এখন বেশ গুরুত্বপূর্ণ। আর তাই নির্দিষ্ট একটি টপিকের মধ্যে কি ধরনের কিওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে এবং কীভাবে ব্যবহার করতে হবে সেটা জানার জন্য কিওয়ার্ড রিসার্স খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

আরো পড়ুন:- কন্টেন্ট রাইটিং কি ? এসইও ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট লেখার নিয়ম !

কিওয়ার্ডের সঠিক ব্যবহার কেন এত গুরুত্বপূর্ণ ? 

বর্তমানে গুগলের এলগরিদম এমনভাবে আপডেট করা হয়েছে যে, যার মাধ্যমে গুগল বুঝতে পারে আপনি কি জন্য এবং ঠিক কীভাবে এই কিওয়ার্ডটি ব্যবহার করছেন। গুগল সব সময় ওয়েবসাইট মালিকদের সুবিধা কম দেখে এবং যারা সার্চ করছে তারা কি সঠিক তথ্যটি পেয়ে উপকৃত হল কি না সেটাই গুগলের মূল উদ্দেশ্য ।

আর তাই এখন শুধুমাত্র কিওয়ার্ড ব্যবহার করলেই হবে না বরং সেই কিওয়ার্ডটি সঠিক ভাবে ব্যবহারও করতে হবে। তা না হলে সাধের র‍্যাংকিং এর দেখা আর কখনই পাওয়া যাবে না।  র‍্যাংকিং এর জন্য কিছু বিষয় আছে যে গুলো খুবই সহায়ক তা আমি নিচে উল্লেখ্য করছি।

টপিক সিলেক্ট করুন 

আপনি কি ধরনের আর্টিকেল লিখতে চাচ্ছেন এবং আপনার ব্লগের বা ওয়েবসাইটের জন্য কি ধরনের টপিকের উপর আপনার আর্টিকেল প্রয়োজন হবে তার একটা লিস্ট তৈরি করে রাখুন। আপনি সহজে কন্টেন্ট লিখতে পারবেন এমন টপিক খুজে বের করুন। নিচে থেকে আপনি আপনার পছন্দের টপিক খুজে নিন। যা আপনার জন্য সহজ হবে।

  1. Parenting 
  2. Family
  3. Relationships
  4. Weddings
  5. Special Occasions
  6. Education
  7. Personal Growth
  8. Travel
  9. Career
  10. Business
  11. Home
  12. Interior Design
  13. DIY
  14. Photography
  15. Fashion
  16. Beauty
  17. Food
  18. Fitness
  19. Finance
  20. Social Media
  21. Jobs
  22. Nutrition
  23. Teaching
  24. Sports
  25. Kindergarten
  26. Education technology
  27. Higher education
  28. Special education
  29. Music education
  30. Education blogs
  31. Physical education
  32. Science /
  33. chemistry
  34. physics
  35. biology
  36. geology 
  37. Math
  38. Classical
  39. Design
  40. Art
  41. Entrepreneur
  42. Healthy
  43. Money
  44. Hotel
  45. Motel
  46. Hostel
  47. Airbnb
  48. Home exchange
  49. Resorts
  50. Skincare
  51. Makeup 
  52. Hairstyles
  53. Body care
  54. Routines
  55. Beauty room
  56. Makeup table
  57. Eye makeup
  58. Foundation
  59. Brushes
  60. Hair care
  61. Hair extensions
  62. Eyelash extensions
  63. Natural beauty
  64. Organic beauty
  65. Understanding cosmetics ingredients 
  66. Brands
  67. Trends
  68. Tips / tricks
  69. Youth
  70. Cooking
  71. Baking
  72. Recipes
  73. Kitchen 
  74. Tools
  75. Cookware
  76. Dinnerware
  77. Baby food
  78. Kids food
  79. Disney food
  80. Party food

আপনি যদি নিয়মিত ব্লগিং অর্থাৎ আর্টিকেল আপডেট করে থাকেন তাহলে আপনি যে টপিকগুলো বেশ জনপ্রিয় অথবা যে টপিকগুলো থেকে আপনার অর্থ উপার্জন হচ্ছে সে টপিকগুলোর উপরেই বেশি কাজ করে যাওয়া আপাতত বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

যারা সার্চ দেয়, আপনি তাদের মত করে চিন্তা করুন। আপনার যে ওয়েবসাইটটি আছে সেই ওয়েবসাইটে একজন কাস্টোমার বা ভিজিটর হিসেবে আপনি কি চাইতেন? কি ধরনের কিওয়ার্ড দিয়ে আপনি সার্চ করতেন সেটা ভেবে দেখুন। ধরুন আপনার ওয়েবসাইটটি এসইও এর উপরেই তৈরি করেছেন। সেভাবেই নিজেকে ভিজিটর হিসেবে ভেবে নিন।

রিলেটেড কিওয়ার্ডের গুরুত্ব

কিওয়ার্ড রিসার্চের ক্ষেত্রে এই রিলেটেড কিওয়ার্ড বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কোন নির্দিষ্ট টপিক দিয়ে সার্চ দিলে সেই টপিকের সাথে আরো কি ধরনের শব্দ বা বাক্য লিখে মানুষ সার্চ দেয় সেগুলোও চলে আসবে। আপনি যদি সঠিক কিওয়ার্ডটি খুঁজে পেতে কষ্ট হয়ে থাকে তাহলে এই রিলেটেড কিওয়ার্ড খুঁজে বের করার মাধ্যমেও নির্দিষ্ট কিওয়ার্ডের গুরুত্ব বাড়িয়ে তুলতে পারবেন।

আপনি যদি টপিকের পাশাপাশি সেই রিলেটেড কিওয়ার্ড গুলোও আপনার আর্টিকেলের মধ্যে রাখেন তাহলে গুগল খুব সহজেই বুঝে নিতে পারবে আপনার আর্টিকেলটি আসলে ঠিক কি ধরনের। কি কি তথ্য আপনার আর্টিকেলের মধ্যে রয়েছে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতে পারে, আপনি যদি “কীভাবে ব্লগিং শুরু করবো’’ লিখে সার্চ দেন তাহলে বেশ কিছু রিলেটেড কিওয়ার্ডও গুগলের সার্চ পেজের নিচে চলে আসবে।

সবচাইতে মজার ব্যাপার হল আপনি যদি এই রিলেটেড কিওয়ার্ড গুলো থেকে একটি কিওয়ার্ড নিয়ে গুগলে আবার সার্চ দেন তাহলে সেই রিলেটেড কিওয়ার্ডেরও রিলেটেড কিওয়ার্ড আপনার সার্চ পেজের নিচে চলে আসবে। ধরুন আমরা “ব্লগ থেকে কিভাবে আয় করা যায়” নামক রিলেটেড কিওয়ার্ড দিয়ে আবার গুগলে সার্চ দিলাম। এখন এই কিওয়ার্ডটিরও রিলেটেড কিওয়ার্ড সার্চ রেজাল্টের সাথে চলে আসবে। 

এভাবে আপনি আপনার নির্দিষ্ট টপিকের সাথে সম্পৃক্ত এমন আরো কিওয়ার্ড খুঁজে পাবেন। তবে এগুলো খুঁজে পাওয়ার জন্যও অনেক ধরনের কন্টেন্ট স্ট্র্যাটেজি টুলস রয়েছে, যেগুলোর মাধ্যমে আপনি একবারেই সব কিওয়ার্ড বের করে ফেলতে পারবেন। 

আরো পড়ুন:- এসইও কি ? কিভাবে এসইও শিখবো ? বিস্তারিত

লং টেইল কিওয়ার্ড বা বড় কিওয়ার্ড খুঁজে বের করুন 

যদি কিওয়ার্ড এবং লং টেইল কিওয়ার্ডের মধ্যে পার্থক্য সম্পর্কে আপনার জানা না থাকে তাহলে প্রথমেই সেটা বলে নেই। কিওয়ার্ড সাধারণত অনেক ছোট হয় এবং সুনির্দিষ্ট হয়ে থাকে। সাধারণত কিওয়ার্ডের মধ্যে এক থেকে তিনটি শব্দ থাকে। অপরদিকে লং টেইল কিওয়ার্ড হল যে কিওয়ার্ডের মধ্যে সেই সুনির্দিষ্ট কিওয়ার্ড থাকে আবার পাশাপাশি আরো বেশ কয়েকটি শব্দ থাকে। 

আপনার লং টেইল কিওয়ার্ডের মধ্যেও নির্দিষ্ট কিওয়ার্ডটি আছে কি না সে ব্যাপারে লক্ষ্য রাখুন। কেননা গুগলে র‍্যাংক করানোর জন্য লং টেইল কিওয়ার্ডের মধ্যে নির্দিষ্ট কিওয়ার্ড থাকাও গুরুত্বপূর্ণ। আসুন তাহলে একটু চিন্তা করে দেখি “ব্লগিং কি ?” এবং “কীভাবে একটি ব্লগ লেখা শুরু করব” অথবা “ব্লগিং করে কীভাবে উপার্জন করব” এগুলোর কোনটি নির্দিষ্ট কিওয়ার্ড আর কোন গুলো লং টেইল কিওয়ার্ড ? 

বুঝতেই পারছেন যে ব্লগিং কি ? শব্দটি এখানে নির্দিষ্ট কিওয়ার্ড, আর বাকিগুলো হল লং টেইল কিওয়ার্ড। যার একটির মধ্যে সরাসরি ব্লগিং শব্দটি আছে এবং অপরটির মধ্যে সরাসরি ব্লগিং লেখা না থাকলে ব্লগ কথাটি লেখা আছে। এটা বুঝাও খুব গুরুত্বপূর্ণ যে, সরাসরি ব্লগিং শব্দটির মধ্যে গুগলে র‍্যাংক করানো খুবই কষ্টকর হলেও, কীভাবে একটি ব্লগ লেখা শুরু করব বা “ব্লগিং করে কীভাবে উপার্জন করব” এই কিওয়ার্ড টি দিয়ে গুগলে র‍্যাংক করানো অপেক্ষাকৃত সহজ। 

কিওয়ার্ড কত প্রকারের হয় ?

আপনি দেখে থাকবেন আমরা কিন্তু সব সময় এক ধরনের কিওয়ার্ড সার্চ করি না। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন প্রয়োজনে বিভিন্ন ধরনের কিওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করি। যেমন ধরুন – আপনি যদি গুগলে এ গিয়ে ” কিওয়ার্ড রিসার্স কি” লেখে সার্চ দেন । আপনি অনেক গুলো কিওয়ার্ড রিসার্স সম্বলিত ওয়েবসাইট দেখতে পাবেন কারন আপনি চান কিওয়ার্ড রিসার্স সমন্ধে জানতে।

এবার আপনি আবার যদি সার্চ করেন “কিভাবে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয় ” গুগল কিন্তু বুঝে যে আপনি কিছু জানতে চাইছেন। সুতরারং সেই সম্পর্কিত ওয়েবসাইট গুলোকে সামনে দেখাবে।

সুতরাং আপনি নিজেই যেমন বিভিন্ন পরিস্থিতিতে বা সময়ে বিভিন্ন কিওয়ার্ড দিয়ে সার্চ দেন সে রকমই বিভিন্ন জনের বিভিন্ন রকমের এর কিওয়ার্ডের উপর নির্ভর করে কিওয়ার্ড গুলোকে ভাগ করা হয় সুবিধার জন্য।

ক. অভিপ্রায় ভিত্তিক প্রকার

সাধারন ভাবে কিওয়ার্ড গুলোকে সার্চের অভিপ্রায়ের উপর নির্ভর করে নিচের মতো করে ভাগ করা যায়। যেমন

  • মার্কেটিং বেসড কিওয়ার্ড
  • ব্রান্ড বেসড কিওয়ার্ড
  • লোকেশন বেসড কিওয়ার্ড
  • প্রোডাক্ট বেসড কিওয়ার্ড
  • কম্পিটিশন বেসড কিওয়ার্ড
  • কাস্টমার বেসড কিওয়ার্ড

১. মার্কেটিং কিওয়ার্ড

মার্কেটিং কিওয়ার্ড কিওয়ার্ড গুলো বিভিন্ন ধরনের মার্কেটিং এর জন্য ভিন্ন ভাবে ব্যবহার করা হয় সেটা হতে পারে কোন ব্রান্ড এর উপর বা কোনো প্রোডাক্ট এর উপর।

উদাহরন – WordPress hosting , Dress, Smart Phone এই ধরনের কিওয়ার্ড গুলো যেকোনো প্রোডাক্টকে নির্দেশ করে ।

২. ব্রান্ড বেসড কিওয়ার্ড

Brand based keywords গুলো মূলত কোনো নির্দিষ্ট কোম্পানি বা ব্রান্ড এর উপর হয়ে থাকে।

উদাহরন – আপনি যদি সার্চ করেন ” Bluehost hosting plans ” , ” Digital ocean hosting plans “এর মানে আপনি Bluehost, digital ocean কোম্পানির hosting plan এর ব্যাপারে সার্চ করে জানতে চাইছেন

কিংবা ধরুন ” SEMrush keyword research tool ” একটি Brand based keyword কারন SEMrush একটি ব্রান্ড keyword research এর জন্য।

৩. লোকেশন বেসড কিওয়ার্ড

কিছু কিওয়ার্ড আছে যে গুলো বিভিন্ন লোকেশন এর উপর নির্ভর করে সার্চ করা হয় তাদের মুলত লোকেশন বেসড কিওয়ার্ড বলা হয়।

উদাহরন – ” hosting in USA ” ,” hosting in uk “,” hosting in India ” কিওয়ার্ড গুলো সার্চ এর মাধ্যমে লোকজন বিভিন্ন লোকেশান যেমন USA , UK, India তে  hosting এর ব্যাপারে জানতে চাইছে সুতরাং এগুলো সবই লোকেশন বেসড কিওয়ার্ড।

৪. প্রোডাক্ট বেসড কিওয়ার্ড

এতদুর পড়ার পর নিশ্চয় এটি কি আপনি বুঝতে পারছেন। এই ধরনের কিওয়ার্ড গুলো যেকোনো প্রোডাক্টকে টার্গেট করে করা হয়ে থাকে।

উদাহরন –Headphone, Smart Phone, Laptop, মানে আপনি প্রোডাক্ট বেসড কিওয়ার্ড এর উপর সার্চ করছেন সুতরাং এটি একটি প্রোডাক্ট বেসড কিওয়ার্ড।

৫. কম্পিটিশন বেসড কিওয়ার্ড

কম্পিটিশন বেসড কিওয়ার্ড গুলো মুলত সেই ধরনের কিওয়ার্ড যেগুলো একই প্রোডাক্টের এর উপর বিভিন্ন কোম্পানি কম্পিটিশন করে থাকে ।

উদাহরণ – ”best phone under 20,000″ এই কিওয়ার্ডটির মধ্যে বিভিন্ন কোম্পানি আসে কারন 20 হাজার দামে বিভিন্ন কোম্পানি ভালো ভালো ফোন বিক্রি করে থাকে।

৬. কাস্টমার বেসড কিওয়ার্ড

এই ধরনের কিওয়ার্ড গুলোর সার্চ মুলত কোনো প্রোডাক্টের একটি নির্দিষ্ট কাস্টমারকে ধরে হয়ে থাকে।

উদাহরণ – ”Best Jeans Pant For Man” , ”Best Jewelry For Woman” , ”Top 10 Baby Foods in USA” এই ধরনের কিওয়ার্ড নির্দিষ্ট কাস্টমার কে উদ্দেশ্য করে ব্যবহার হয়ে থাকে।

খ. দৈর্ঘ্য নির্ভর করে কিওয়ার্ড এর প্রকারভেদ

আমরা দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্ন বিষয়ে গুগলে সার্চ করে থাকি কেউ সংক্ষেপে সার্চ করি আবার কেউ দীর্ঘ শব্দ বা বাক্য ব্যবহার করে সার্চ করি। আবার যাদের ওয়েবসাইট রয়েছে বা যারা ব্লগিং করেন তারা চিন্তা করছেন যে সাধারন মানুষ কি কি লিখে সার্চ করতে পারে। এছাড়াও দৈর্ঘ্য এর উপর নির্ভর করে কিওয়ার্ড গুলোকে ভাগ করা যায়।যেমন –

  • ১. Short-tail keyword

এই ধরনের কিওয়ার্ড গুলো মুলত ছোট ছোট শব্দ দিয়ে সার্চ করা হয় । যেমন – best bike, best theme, Best Smartphone এগুলো short-tail keyword। এগুলো খুব বেশি Competitive হয়ে থাকে এবং search অনেক বেশি হয়ে থাকে।

  • ২. Mid-tail keywords

এ কিওয়ার্ড গুলো short-tail keyword এর থেকে একটু বড় হয়ে থাকে । এগুলো একটু কম competitive এবং কম search volume এর হয়ে থাকে। যেমন – ’’best bike under 2 lakh “, ” best WordPress theme ” এ Mid-tail keywords .

৩. Long-tail keywords

এগুলো আকারে অনেকটায় বেশি বড় হয়ে থাকে এবং সার্চ ও কম্পিটিশন অনেকটায় কম হয়ে থাকে। এই ধরনের long-tail keywords ব্যবহার করে নতুন ওয়েবসাইটগুলো ভালো র‌্যাংকে আস্তে পারে।

যেমন – ” best sports bike under 2 lakh in 2021″ ,” best seo optimized WordPress theme 2021 ” হল long-tail keyword.

গ. সার্চ নির্ভর কিওয়ার্ডের প্রকারভেদ

আমরা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বিষয়ে গুগলে সার্চ করে থাকি।এই সার্চের উপর ভিত্তি করে অনেক কিওয়ার্ড পাওয়া যায়। এছাড়া আপনার সার্চ এর উপর নির্ভর করে কিওয়ার্ড গুলোকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়। যেমন-

  • ১. Primary Keyword

প্রাইমারী কিওয়ার্ড হল যেগুলো আমরা সচরাচর গুগলে লিখে সার্চ দিই।

  • ২. LSI Keywords

LSI কথাটির পুরো নাম Latent Semantic Indexing । গুগলে সার্চ করলে Search engine এর প্রথম পাতার নীচের দিকে primary keyword এর সাথে সম্পর্কিত যে কিওয়ার্ড গুলো show করে তাদের Latent Semantic Indexing Keywords বলে।

কিভাবে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয়?

কিওয়ার্ড রিসার্চ করা খুবই সহজ, কারণ কিওয়ার্ড রিসার্চ করার জন্য আপনি অনেক ধরনের tools পেয়ে যাবেন। কিন্তু কিওয়ার্ড রিসার্চ করার কোন কোন জিনিসগুলো আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে। এটি জেনে রাখা খুবই জরুরি। তাহলে চলুন আগে আমরা এটি বুঝে নেই তারপর কিওয়ার্ড রিসার্চ tool কোন কোন গুলি সেই সম্বন্ধে জানবো।

কিওয়ার্ড রিসার্চ করার সময় যে বিষয় গুলো অবশ্যই খেয়াল রাখবেন

  • Search Volume: কিওয়ার্ড রিসার্চ করার সময় আপনাকে কিওয়ার্ডের Search Volume কত সেই দিকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে Search volume এটি বলে দেয় কোন কিওয়ার্ড এক মাসের মধ্যে কতবার সার্চ করা হয়েছে কিংবা এই কিওয়ার্ড রেংক সম্ভব কিনা।
  • Seo Difficulty: SEO Difficulty এর অর্থ হলো competition. কিওয়ার্ড রিসার্চ করার সময় volume দেখার সাথে সাথে আপনাকে সেই কিওয়ার্ডের SEO Difficulty দেখা খুবই জরুরী SEO Difficulty 0-1000 এর মধ্যে হয়।
    আপনাকে অবশ্যই কম SEO Difficulty কিওয়ার্ড বেছে নিতে হবে। কারণ ওই কীওয়ার্ড এ আপনার পোস্ট তাড়াতাড়ি রেঙ্ক হবে যদি আপনার ব্লগটি নতুন হয় তাহলে আপনাকে সর্বদা 0-100 SEO Difficulty কিওয়ার্ড বেছে নিতে হবে কারণ ওই ধরনের কিওয়ার্ডের competition কম হয় আর আপনার পোস্ট তাড়াতাড়ি রেঙ্ক হবে
  • Keywords Difficulty:- Keywords Difficulty হচ্ছে কোন কিওয়ার্ডের সার্চ ভলিউম ও কম্পিটিশন এর উপর নির্ভর করা। অর্থাৎ যে কিওয়ার্ডের সার্চ ভলিউম ও কম্পিটিশন বেশি সেটা গ্রহন করা যাবে না। বরং সেই রিলেটেড অন্য কোন কিওয়ার্ড নিতে হবে।
  • CPC: CPC এর অর্থ হলো Cost Per Click এর অর্থ হল যদি আপনার পোস্টের মধ্যে থাকা Ads এ ক্লিক হয় তাহলে আপনি কত টাকা/পয়সা পাবেন।এটি মূলত যারা গুগল এডসেন্স কেন্দ্রি ব্লাগর করেন তাদের জন্য প্রযোজ্য। আপনাকে সর্বদাই বেশি CPC কিওয়ার্ড কে বেছে নিতে হবে

কিওয়ার্ড রিসার্চ করার ফ্রী টুল

  • Google Trends: Google Trends খুবই ভালো tool এখানে trending কিওয়ার্ড সম্বন্ধে জানতে পারবেন আর এর সাথে কোন কি আর কোন কোন দেশে জনপ্রিয় এটিও জানতে পারবেন। যদি আপনি trending টপিক এর উপর পোস্ট লিখতে চান তাহলে আপনি Google Trends থেকে জানতে পারবেন যে কোন টপিক এখন trending এ আছে আর ওই টপিকটি কোন কোন দেশে বেশি সার্চ করা হচ্ছে এখানে আপনি Trending কিওয়ার্ড এর সম্বন্ধে জানতে পারবেন।
  • Google AdWords Keyword Planner: Google AdWords এর একটি পার্ট হলো Google Keyword Planer এটি একটি খুবই ভালো Keyword Research tool অনেক ব্লগার এই Keyword Tool টির ব্যবহার করেন এটি সম্পুর্ন ফ্রী। Google Keyword Planner এ আপনি কিওয়ার্ডের সঠিক search volume, competition আর CPC জানতে পারবেন কারণ এটি Google এর নিজস্ব tool.

    এখানে আপনি আপনার Main কিওয়ার্ড দিয়ে তার সম্বন্ধিত যত কিওয়ার্ড গুগলে সার্চ করা হয় সেগুলো জানতে পারবেন। এছাড়াও এখানে আপনি কোন কিওয়ার্ড কোন দেশে কতবার সার্চ করা হয় আর ওই কিওয়ার্ডের competition কত আর ওই কিওয়ার্ডের CPC কত সেটিও জানতে পারবেন।

Google Keyword Planer আপনি সর্বদায় 100% সঠিক ফলাফল পাবেন এখানে আপনি 3 টাইপের কিওয়ার্ড জানতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনার সুবিধা মত কিওয়ার্ড বেছে নিবেন।

  • Low
  • Medium
  • High

Ubersuggest: Ubersuggest আমার সবথেকে পছন্দের tool এটি Neil Patel প্রতিষ্ঠা করেছেন যদিও এখন এই tool টি paid আর ফ্রি দুটোই হয়ে গিয়েছে কিন্তু এটির ফ্রি ভার্সন খুবই ভালো এখানে আপনি আপনার মেইন কিওয়ার্ড সম্বন্ধিত যত কিওয়ার্ড আছে সেগুলির জানতে পারবেন আর সাথে সেই কিওয়ার্ডের Search Volume, CPC আর SEO Difficulty কত সেটিও জানতে পারবেন।

Ubersuggest এর features
  • এখানে আপনি মেইন কি ওয়ার্ড সম্বন্ধিত বিভিন্ন কিওয়ার্ড জানতে পারবেন।
  • সাথে কি ওয়ার্ড এর volume, cpc আর seo difficulty ও জানতে পারবেন।
  • কোন কোন কিওয়ার্ডে কোন কোন ওয়েবসাইট Top 100 এ রেঙ্ক করছে সেটি জানতে পারবেন।
  • যেকোনো ওয়েবসাইটের overview।
  • যেকোনো ওয়েবসাইটের top pages।
  • যেকোন ওয়েবসাইট কোন কোন দেশে রেঙ্ক করছে।
  • যেকোনো ওয়েবসাইটের পোষ্টের backlinks।
  • যেকোনো ওয়েবসাইটের কিওয়ার্ড কোন কোন পজিশনে রেঙ্ক করছে সেটি জানতে পারবেন।

SEMrush: এটি Paid আর ফ্রি Keyword Research tool এই tool কে অনেক ব্লগার ব্যবহার করছেন এখানে আপনি আপনার যেকোনো কিওয়ার্ড কে analysis করতে পারবেন যেমন ওই কিওয়ার্ডের search volume, cpc, seo difficulty এইসব আর এর সাথে যেকোনো কিওয়ার্ডের সম্বন্ধিত অনেক কিওয়ার্ড জানতে পারবেন।
এখানে আপনি আপনার অ্যাকাউন্ট তৈরী করলে এই tool টি আপনাকে 14 দিন পর্যন্ত ফ্রিতে ব্যবহার করতে দেবে এরপর আপনাকে টাকা pay করতে হবে।

SEMrush এর features
  • আপনার কিওয়ার্ডের সাথে সাথে অন্য কিওয়ার্ড জানতে পারবেন।
  • কি ওয়ার্ডের search volume, CPC, competition জানতে পারবেন।
  • যেকোনো ওয়েবসাইটের overview পাবেন।
  • যেকোন ওয়েবসাইট বা পোষ্টের backlinks জানতে পারবেন।

Paid কিওয়ার্ড রিসার্চ টুল

  • Ahrefs: এটি খুবই advance tool এদিকে অনেক ব্লগার ব্যবহার করেন। যে সমস্ত পুরনো ব্লগার আছেন তারা এই টুলটি কে ব্যবহার করেন। আমি নিজেই টুলটিকে ব্যবহার করছিলাম। এখানে আপনি খুবই ভালো ভাবে Keyword Research করতে পারবেন আর তাছাড়া আপনি অন্য ওয়েবসাইট কোন কিওয়ার্ড এর ওপর রেঙ্ক করছে সেটা জানতে পারবেন।

Ahrefs Tool এর features

  • Advanced Keyword Research।
  • যেকোনো কিওয়ার্ডের search volume, cpc আর ওই কিওয়ার্ডের competition জানতে পারবেন।
  • যেকোনো কিওয়ার্ড কোন কোন ওয়েবসাইডের পোস্ট রেঙ্ক আছে সেটি জানতে পারবেন আর সাথে তাদের পোস্ট এর backlinks এর সম্বন্ধে জানতে পারবেন।
  • অন্য কোন ওয়েবসাইটের পোস্ট কোন কোন কিওয়ার্ড এ রেঙ্ক আছে সেটি জানতে পারবেন।
  • যেকোনো ওয়েবসাইটের পোষ্টের ব্যাকলিংক সম্বন্ধে জানতে পারবেন।
  • যেকোনো ওয়েবসাইট monthly কত ইনকাম করছেন সেটি জানতে পারবেন।
  • যেকোনো ওয়েবসাইটের সবথেকে জনপ্রিয় পোষ্ট কোনটি আর ওই ওয়েবসাইটটি কোন কিওয়ার্ডের ওপর রেঙ্ক আছে তা জানতে পারবেন।
  • Traffic analysis করতে পারবেন।
  • Site audit করতে পারবেন।
  • Rank track করতে পারবেন।
  • Content Explorer।
  • SEO toolbar।
  • Broken link checker।
  • Website authority checker।
  • Keyword generator।

এই টুলটি দ্বারা আপনি আপনার ওয়েবসাইটকে তাড়াতাড়ি রেঙ্ক করাতে পারবেন এর সাথে আপনার competitor দের analysis করতে পারবেন আর তাদের উপর নজর রাখতে পারবেন

  • SEMrush: এই টুলটি খুবই ভালো এই tool কে অনেক ব্লগার ব্যবহার করেন এছাড়া আমি নিজেও ব্যবহার করি এটি Ahrefs এর মতই advance tool এখানে আপনি অনেক ধরনের advance feature পাবেন

SEMrush এর features

  • এখানে আপনি advanced Keyword Research করতে পারবেন।
  • এখানে আপনি অর্গানিক আর advertising Keyword Research করতে পারবেন।
  • আপনি যেকোন কী ওয়ার্ড এর search volume, cpc আর ওই কিওয়ার্ডের competition জানতে পারবেন।
  • যেকোনো কিওয়ার্ড কোন কোন ওয়েবসাইডের পোস্ট রেঙ্ক আছে সেটি জানতে পারবেন আর সাথে তাদের পোস্ট এর backlinks এর সম্বন্ধে জানতে পারবেন।
  • অন্য কোন ওয়েবসাইটের পোস্ট কোন কোন কিওয়ার্ড এ রেঙ্ক আছে সেটি জানতে পারবেন।
  • যেকোনো ওয়েবসাইটের পোষ্টের ব্যাকলিংক সম্বন্ধে জানতে পারবেন।
  • যেকোনো ওয়েবসাইটের সবথেকে জনপ্রিয় পোষ্ট কোনটি আর ওই ওয়েবসাইটটি কোন কিওয়ার্ডের ওপর রেঙ্ক আছে তা জানতে পারবেন।
  • Traffic analysis করতে পারবেন।
  • Site audit করতে পারবেন।
  • Rank track করতে পারবেন।
  • Content Explorer।
  • SEO toolbar।
  • Broken link checker।
  • Website authority checker।
  • Keyword generator।

3 Comments on “কিওয়ার্ড রিসার্চ কি ? কিভাবে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয় ?”

Leave a Reply

Your email address will not be published.